ট্যাগ সংরক্ষণাগার:রাজনীতি

রাজনীতি নয় আমি কেন ছাত্র আন্দোলনের কর্মী

  রাজনৈতিক ক্ষমতা হল একই দলভুক্ত ব্যক্তিদের দ্বারা অন্যব্যক্তিদের পরিচালনা করাকে বুঝায়। আর রাজনীতি হল এই ক্ষমতাকে ব্যবস্থাপনার একটা পদ্ধতি মাত্র। যা রাষ্ট্র পরিচালনার কাজে, সংগঠন পরিচালনার কাজে, দল পরিচালনার কাজে, পরিবার পরিচালনার কাজে কিংবা কখনও কখনও ব্যক্তি যখন নিজেই প্রতিষ্ঠান তখন অন্যব্যক্তিকে পরিচালনা করার কাজে ব্যবহার করা হয়। তাহলে বলুন, একজন শিক্ষার্থীর কেন রাজনীতি করতে হবে? কেন তাকে রাজনৈতিক ক্ষমতা অর্জন করতে হবে? যে ছেলেটা বা মেয়েটা এখনও ইতিহাস …

আরও পড়ুন

ধর্ম, ব্যক্তি, রাজনীতি ও ধর্মনিরপেক্ষ ভাবনা

আলোচনার শুরুতেই বলে নেওয়া প্রয়োজন আমি কেন ব্যক্তিস্বাধীনতায় বিশ্বাস করি। এই বিষয়টা বুঝতে আমাকে প্রচুর সময় অতিক্রম করতে হয়েছে। আমরা যদি একটু সচেতনভাবে বুঝতে চেষ্টা করি তাহলে দেখব, আমরা ব্যক্তিকে কখনই জানতে পারি না।  আমরা যা জানি বলে প্রচার করি তা মূলত, ঘটনা সম্পর্কে সাময়িক ধারণা। আসুন আরো ভিতরে ঢুকে বুঝতে চেষ্টা করি। ধরেন, আব্দুল রহিম ও দীপক শীল দুই বন্ধু। এরা পরস্পর দাঁড়িয়ে কথা বলছে। আমাদের কাছে সাধারণভাবে মনে …

আরও পড়ুন

নেতাজী সুভাষের রাজনীতিই সমাধান

নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসু যে রাজনৈতিক ধারা শুরু করতে চেয়েছিলেন তা আমাদের এই অঞ্চলের জন্য খুবই তাৎপর্যপূর্ণ ছিল বলেই মনেকরি। তাঁর রাজনৈতিক চেতনার জায়গাটা যদি আমরা পরিষ্কারভাবে বুঝতে চাই তাহলে আমাদের বুঝতে হবে “ফরোয়ার্ড ব্লক” গঠনের রাজনীতিকে। ফরোয়ার্ড ব্লক যে চেতনার আলোকে গঠিত হয়েছিল তাকে যদি অগ্রসর করা যেত তাহলেই একমাত্র এই অঞ্চলের রাজনৈতিক গতিমুখ সমাজতন্ত্র অভিমুখী হতো।কারণ সুভাষ বসুর আপ্রাণ চেষ্টা ছিল এই দেশের আলোকে সমাজতন্ত্রের বয়ান। এবং এই বয়ানই …

আরও পড়ুন

আমরা কি পরিবর্তন হবো ?

আমি একটি বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এগিয়ে রাখি । উগ্র মৌলবাদীদের থেকে কৌশলে দেশকে রক্ষা করার জন্য সংগ্রাম করে যাচ্ছেন । জানি না উনি না থাকলে দেশের কি হবে । আমি দল নয়, ব্যক্তি বিশেষ কিছু রাজনীতিবীদদের সন্মান করি । হোক সে আওয়ামীলীগ কিংবা বিএনপি । তাই আমার দৃষ্টি থাকে প্রতীক নয় ব্যক্তি কেন্দ্রিক । আওয়ামীলীগ, বিএনপি ছাড়া ও ছোট ছোট দলের অনেক রাজনীতিবীদ আছেন যাদের শ্রদ্ধা করতে বাধ্য হই …

আরও পড়ুন

কেউ চাইলে কি রাজনীতির বাইরে থাকা যায়?

আপনি রাজনীতি পছন্দ করেন না। তাতে কারো সমস্যা নেই। সেটা আপনার সিদ্ধান্ত গ্রহণের অধিকার আছে। আপনি রাজনীতি করবেন নাকি করবেন না – নিজের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করে। তবে আপনি চাইলেও রাজনীতি বাইরের থাকতে পারবেন না। আমরা যারা নিজদেরকে নিরপেক্ষ বলে দাবি করে থাকি। আসলে চাইলে কি নিরপেক্ষ থাকায় যায় তথা চাইলে কি রাজনীতি বাইরে থাকা যায়? আপনি যে সমাজে থাকেন, সে সমাজ পরিচালনা তো রাজনীতি করে থাকে। রাজনীতি ঠিক নিয়ম-নীতি। …

আরও পড়ুন

স্বপ্ন

আমি স্বপ্ন দেখি, দামাল ছেলেরা জুম্ম জাতির অস্তিত্ব ও জন্মভূমি রক্ষার আন্দোলনে পাহাড় কেঁপে উঠবে, আত্ম-বলিদানে রক্ষা করবে পাহাড় ও জাতির অস্তিত্ব। জুম্ম জাতির তোমরা এগিয়ে চল, দামাল ছেলেরা উঠবে জেগে, ভয় কিসের আর বল! পার্বত্য চট্টগ্রামে জুম্মদের একদিন আত্মনিয়ন্ত্রণাধিকার প্রতিষ্ঠার হবে। আমি স্বপ্ন দেখি, ধুধুক ছড়া থেকে ঘুমধুম পর্যন্ত পুরো জুম্ম জেগে উঠবে। জুম্ম জাতির তোমরা এগিয়ে চল, অশুভ শক্তির প্রতিক্রিয়াশীল ও সুবিধাবাদী দালালীপনাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলবে। পার্বত্য …

আরও পড়ুন

আমাদের শিক্ষকদের রাজনীতি !

শিক্ষকতা জগতের মহান পেশাগুলোর মধ্যে একটি। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক দেশের জ্ঞান বিকাশের কর্ণধার । এই দেশের গুরুত্বপূর্ণ সব আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমাজ লড়াই করেছে। রক্ত দিয়েছে,প্রাণ দিয়েছে। শিক্ষকরা সরাসরি রাজনীতি হয়ত করেন নি কিন্তু রাজনীতিবিদদের পদ দেখিয়েছেন বারংবার। তবে এখন সময় বদলেছে। আমাদের শিক্ষকরা এখন গবেষণা ও পাঠদানের চেয়ে রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত থাকে। রাজনীতিবিদদের চেয়েও চমকপদ বক্তব্য দিয়ে তাঁরা মিডিয়ার শিরোনাম হতে ব্যাকুল। সাবেক প্রধান বিচারপতি সিনহাকে থাপ্পড় দেয়ার মন-বাসনার কথা …

আরও পড়ুন

তোমাদের প্রতি শতকোটি সালাম

এই তরুণরাই ইতিহাস-ঐতিহ্যকে ধারণ করবে- এরাই ইতিহাস গড়বে। তারা বায়ান্না দেখেনি, একাত্তর দেখেনি- তারা একবিংশ শতাব্দীর স্বৈরাচারী সরকার, ফ্যাসিবাদী সরকারকে দেখেছে। তারা দেখেছে এই সরকারের আমলে ছাত্রদের উপর অন্যায়-অত্যাচার। ছাত্রীদেরকে ধর্ষণ করে মেরে ফেলা, তারা দেখেছে ‘কোটা সংস্কার’ আন্দোলনকর্মীদের উপর জুলুম- তারা আরো সাক্ষী হলো জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয়ের ছাত্র আরিফুলের লাশের। তাদের সহপাঠীদেরকে মেরে রক্তাক্ত করার সাক্ষীও তারা। তাদের কাছে আন্দোলনের অনেক উপাদানই রয়েছে। এই বয়সেই তো পুরো পৃথিবীকে পরিবর্তন করা …

আরও পড়ুন

মার্ক্সীয় সাম্যবাদ অনিবার্য

ইউরোপে ১৬৮৮ সালে ইংলিশ বিপ্লব ও ১৭৮৯ সালে ফরাসি বিপ্লবের পথধরে পুঁজিবাদ যাত্রা করে। দীর্ঘ কালপর্যায়ে ইউরোপীরা দুনিয়ার প্রায় অঞ্চল তাদের উপনিবেশিক শাসনে পরিণত করেছিল। কার্ল মার্কস কমিউনিস্ট ইশতেহার রচনা করেন ১৮৪৮ সালে। এরপূর্বেই স্বাধীনতা আন্দোলন, ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন, ইংরেজ হঠাও, স্বাধীনতা নয় মৃত্যু এমন স্লোগান দুনিয়া জোরে উচ্চারিত হতে থাকে। যেমন, আমেরিকা স্বাধীন হয় ১৭৭৬ সালে, রুশ বিপ্লব হয় ১৯১৭ সালে, দেশভাগ হয় ১৯৪৭ সালে ইত্যাদি। সাম্রাজ্যবাদ বিষয়টা আসলে কি? …

আরও পড়ুন

পুঁজিবাদ বিরোধী লড়াইয়ে যা নেই

আমরা সমগ্র বিশ্বব্যাপী চলা পুঁজিবাদ-সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী লড়াই এর কথা জানি। রুশ বিপ্লবের পরে এটি সমগ্র বিশ্বব্যাপী যে প্রকাণ্ড রূপ ধারণ করেছিল তা আজ অনেকাংশে স্তিমিত। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক এবং আত্মঘাতী হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। শুধু কি মানুষের জন্য,সমগ্র বিশ্বনিখিল এর দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। প্রাণ- প্রকৃতির উপর চলছে চরম অত্যাচার। এই সংকটের সময়ে দাঁড়িয়ে আমরা হরেক রকম ব্যাখ্যা দাঁড় করাতে পারি। আমরা কেও বলব যে,”আমরা এতদিন ভুল পথে ছিলাম, কোনোকিছুই বদলানো সম্ভব …

আরও পড়ুন
error: এই ব্লগের লেখা কপি করা যাবে না