স্বর্ণালী স্মৃতি

স্বর্ণালী সেই দিনগুলো ভাই কাটত খেলার মাঠে কাটত সময় ভেলায় ভেসে কাটত সময় ঘাটে । কাটত সময় স্বপ্ন দেখে মায়ের কোলো পিঠে হরেক মজার নাড়ু খেয়ে হজমি আচার মিঠে  । পান্তা ইলিশ মন্ডা মিঠাই ভাপা পিঠার স্বাদ স্বর্ণালী ঐ স্মৃতিগুলো পরছে মনে আজ । এমন সোনার দিনগুলো কি আসবে ফিরে আর তাইনা ভেবে একলা ঘরে মন হয়ে যায় ভার ।

আরও পড়ুন

পার্বত্য চট্টগ্রামে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা নিয়ে কিছু কথা

বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন গত ১৬ ও ১৭ অক্টোবর পার্বত্য চট্টগ্রাম সফর করে আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক বৈঠক ও আলোচনা সভা করেছেন। ১৬ অক্টোবর তিনি হেলিকপ্টারযোগে প্রথমে খাগড়াছড়ির রামগড়ে যান এবং সেখানে একটি থানা ভবন উদ্বোধন করেন। এরপর ঐ দিন বিকালে তিনি রাঙামাটিতে গিয়ে তিন জেলার সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা ও গোয়েন্দা সংস্থার লোকজনের সাথে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। পরদিন একই বিষয়ে তিনি রাঙামাটি সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে সরকারি দলের এমপি-মন্ত্রী, তিন …

আরও পড়ুন

পন্ডিত সত্যপ্রিয় মহাথেরো : সংক্ষিপ্ত কর্ম ও জীবন

ঊন্নিশো ত্রিশ সালের দশই জুন তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির (বর্তমান বাংলাদেশ) কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার পশ্চিম মেরংলোয়া গ্রামে হরকুমার বড়ুয়া এবং প্রেমময়ী বড়ুয়ার ঘরে জন্মগ্রহণ করেন বিধু ভূষণ বড়ুয়া। হরকুমার ও প্রেমময়ীর তৃতীয় এবং শেষ সন্তান হিসেবে জন্মগ্রহণ করেছিলেন বিধু ভূষণ। অন্য দশজন ছেলের মতো শিক্ষা দীক্ষা নিয়ে বেড়ে উঠছিলেন বিধূ ভূষণ বড়ুয়া। মহামানব গৌতম বুদ্ধের অহিংস দর্শন এবং সংসার ত্যাগের অসীম বানীসমূহ দারুণভাবে নাড়া দিয়েছিলো বিধূ ভূষণের মনে। …

আরও পড়ুন

প্রধানমন্ত্রীর শান্তিতে নোবেল পেতে হলে …

চট্টগ্রামের মেয়র আ.জ.ম. নাসির উদ্দীন বলেছেন বুয়েটের হত্যাকা- না ঘটলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শান্তিতে নোবেল পেতেন। নোবেল কি এত সস্তা? আমি মনে করি নোবেল পেতে হলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে পার্বত্য চট্টগ্রামে জুম্মদের অধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে প্রকৃত শান্তি আনতে হবে। পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি ছাড়া তিনি নোবেল শান্তি পুরস্কার পাবেন না। স্মরণ করা দরকার, পার্বত্য চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে সশস্ত্র সংঘাত বন্ধ হওয়ার পর পরই তিনি ইউনেস্কো শান্তি পুরস্কার লাভ করেছিলেন। বর্তমানে সারা বিশ্ব …

আরও পড়ুন

রাজনীতি নয় আমি কেন ছাত্র আন্দোলনের কর্মী

  রাজনৈতিক ক্ষমতা হল একই দলভুক্ত ব্যক্তিদের দ্বারা অন্যব্যক্তিদের পরিচালনা করাকে বুঝায়। আর রাজনীতি হল এই ক্ষমতাকে ব্যবস্থাপনার একটা পদ্ধতি মাত্র। যা রাষ্ট্র পরিচালনার কাজে, সংগঠন পরিচালনার কাজে, দল পরিচালনার কাজে, পরিবার পরিচালনার কাজে কিংবা কখনও কখনও ব্যক্তি যখন নিজেই প্রতিষ্ঠান তখন অন্যব্যক্তিকে পরিচালনা করার কাজে ব্যবহার করা হয়। তাহলে বলুন, একজন শিক্ষার্থীর কেন রাজনীতি করতে হবে? কেন তাকে রাজনৈতিক ক্ষমতা অর্জন করতে হবে? যে ছেলেটা বা মেয়েটা এখনও ইতিহাস …

আরও পড়ুন

ধর্ম, ব্যক্তি, রাজনীতি ও ধর্মনিরপেক্ষ ভাবনা

আলোচনার শুরুতেই বলে নেওয়া প্রয়োজন আমি কেন ব্যক্তিস্বাধীনতায় বিশ্বাস করি। এই বিষয়টা বুঝতে আমাকে প্রচুর সময় অতিক্রম করতে হয়েছে। আমরা যদি একটু সচেতনভাবে বুঝতে চেষ্টা করি তাহলে দেখব, আমরা ব্যক্তিকে কখনই জানতে পারি না।  আমরা যা জানি বলে প্রচার করি তা মূলত, ঘটনা সম্পর্কে সাময়িক ধারণা। আসুন আরো ভিতরে ঢুকে বুঝতে চেষ্টা করি। ধরেন, আব্দুল রহিম ও দীপক শীল দুই বন্ধু। এরা পরস্পর দাঁড়িয়ে কথা বলছে। আমাদের কাছে সাধারণভাবে মনে …

আরও পড়ুন

আবরার হত্যা: নতুন কিছু নয়

ধর্মনিরপেক্ষতা কোন আদর্শ নয়। প্রত্যেক ব্যক্তির চিন্তা যেন অন্যের দ্বারা বাঁধাপ্রাপ্ত না হয় তা নিশ্চিত করবে। ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রের নিজস্ব কোন নির্দিষ্ট মতাদর্শ নেই। তাহলে কোন রাষ্ট্র যদি বিশেষ চিন্তাকে গুরুত্ব দেয়, অধিকাংশ ব্যক্তির একই চিন্তাকে সিদ্ধান্ত আকারে নেয়, তা ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হতে পারে না। সংখ্যাধিক্য গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের সঙ্গে ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রের এখানেই চরম বিরোধ খুঁজে পাওয়া যায়। আমার দেখি, প্রাচীন দার্শনিক প্লেটোর আদর্শ রাষ্ট্রচিন্তা গ্রহণ না করে, মধ্যযুগের রাষ্ট্রগুলো ধর্মীয় আদর্শ …

আরও পড়ুন

তোমাকে বলছি…..কেন ফ্যাসিবাদ দূর হয় না

কুসংস্কারচ্ছন্ন, ধর্মান্ধ, ভক্তিবাদী কর্মী বাহিনী নিয়ে ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করা যায় না। ইতিহাস কি বলে, ইউরোপী বুর্জোয়ারা যখন গির্জার শাসন থেকে জনগণকে মুক্ত করল তখন রাজার সঙ্গে আপোস করতে হয়। স্বৈরাতন্ত্রকে সমর্থন দিতে হয়। কারণ পুরোহিতদের সঙ্গে লড়াই করার মতো সক্ষমতা বুর্জোয়াদের ছিল না। সেকালে পুরোহিতরা জনগণকে ব্যক্তিস্বাধীনতা দেয়নি। ঈশ্বরের কাছে মাথা বন্ধক রাখতে হত। কেননা ধর্মও একপ্রকার সমাজবাদী আন্দোলন। জোটবদ্ধভাবে ঈশ্বরের বিধি নিষেধ মান্য করতে হত। ধর্মে ব্যক্তির কোন …

আরও পড়ুন

পাহাড়ে সেনাতন্ত্রের দাবানলে হুমকির মূখে আদিবাসীদের জাতীয় অস্তিত্ব

আমরা দেখেছি বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের পর থেকে পার্বত্য চট্টগ্রামের বাস্তবতা কেমন ভয়াভহ ছিলো। ৯ মাস ব্যাপী রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ৩০ লক্ষ বাপ-ভাইয়ের জীবন উৎসর্গ ও দুই লক্ষ মা-বোনের ইজ্জত লুন্ঠনের বিনিময়ে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা অর্জনে সক্ষম হয় বাংলাদেশ নামক দেশটি। বাঙালী জাতীর স্বাধীনতা লাভের মূলে ব্যাপক পরিসরের ভূমিকা ছিলো আদিবাসীদেরও। পার্বত্য চট্টগ্রাম হলো আদিবাসীদের আবাসভূমি। ৭১ সালে সদ্য স্বাধীন হওয়া বাংলাদেশ নামক দেশটির একটা অংশ ছিলো পার্বত্য চট্টগ্রাম। বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের …

আরও পড়ুন

সেপ্টেম্বর শুধু উৎসব নয়: বদলা নেয়া হবে

মহান ভাষা আন্দোলনের পটভূমিতে ১৯৫২ সালের ২৬ এপ্রিল বর্তমান বংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের পথচলা। এই প্রতিষ্ঠানের আত্মপ্রকাশের মধ্য দিয়ে এ দেশের ছাত্র আন্দোলনে সূচিত হয় দেশপ্রেমিক ও বিপ্লবী ধারার। জন্মলগ্ন থেকেই ছাত্র ইউনিয়ন শিক্ষার অধিকার অর্জন, প্রকৃত গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা, জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল শোষণ ও নিপীড়নের অবসান, সাম্প্রদায়িকতা নির্মূল, সাম্রাজ্যবাদী, আধিপত্যবাদী ষড়যন্ত্র ও নয়া ঔপনিবেশক শোষণের হাত থেকে মুক্তি এবং দেশে একটি সুখী-সুন্দর সমাজ গঠনের লক্ষ্যে নিরবিচ্ছিন্ন ও আপোসহীন লড়াই পরিচালনা করছে। …

আরও পড়ুন

শিশু কিশোরদের জন্য চাই সুস্থ বিনোদন

আমাদের জীবনের এক একটা সময় আমরা ভিন্ন ভিন্নভাবে উপভোগ করেছি। আমরা যখন ছোট ছিলাম তখন পাড়াতো ভাই-বোনদের নিয়ে মাটির জিনিস-পত্র বানিয়ে ঘর-সংসার খেলা, মাঠে গিয়ে ক্রিকেট-ফুটবল, চোর-পুলিশ খেলাসহ আরো কত রকমের খেলা ছিলো। আবার যখন কিশোর বয়সে পা দিই তখন আমাদের হাতে এলো গল্প-উপন্যাসের বই। তাছাড়া মাঠে মাঠে দোঁড়ানো, ঘুড়ি উড়ানোতো ছিলোই, ঘুড়ি উড়াতে উড়াতে পাখি দেখা এবং পাখি হয়ে আকাশে উড়ে বেড়ানোর স্বপ্নে বিভোর হয়ে থাকতাম। লেখাপড়ার পাশাপাশি আমরা …

আরও পড়ুন

পাহাড়ের গায়ে একদিন

পাহাড়ের গায়ে গায়ে ঘুরতে কার না ভালো লাগে। আমি গিয়েছিলাম বান্দরবান জেলার নাইক্ষংছড়িতে। অসাধারণ অভিজ্ঞতা আর আনন্দ নিয়ে ঘরে ফিরেছি। সারাদিন ক্লান্তিহীনভাবেই মানুষ পারাপারে ব্যস্ত থাকেন এই মাঝি। ছোট ডিঙি নৌকা আর গলায় মধুর সুরের গান আপনাকে আরো আনন্দ দিবে। আশ্চর্য বিষয় হলো ভূ-তাত্ত্বিকভাবে কক্সবাজার আর বান্দরবান জেলা একসাথে পাশাপাশি হয়ে বসবাস করছে। ব্রিজের উপর দিয়ে যাওয়োর সময় আপনার দৃষ্টি আটকে দিবে এই পাহাড়ের ভাজ।   একপাল ভেড়া ঘাস খেতে …

আরও পড়ুন

আদিবাসী লক্ষ লোকের মরণ ফাঁদ, কাপ্তাই বাঁধ!!!

কাপ্তাই বাঁধ নির্মাণের কাজ ১৯৫২ সালে শুরু হয় এবং শেষ হয় ১৯৬২ সালে।এতে পার্বত্য চট্টগ্রামের মোট ৩৬৯টি মৌজার ১৫২টির মোট ১৮ হাজার পরিবারের প্রায় ১ লক্ষ লোক উদ্বাস্ত হয়।এই ১৮ হাজার পরিবারের ১০ হাজার পরিবার কর্ণফুলী, চেংগী,কাসালং এবং আর ছোট ছোট কয়েকটি নদী উপনদীর অববাহিকার চাষী এবং বাকী ৮ হাজার পরিবার জুম চাষী।ক্ষতিগ্রস্ত সর্বোচ্চ লোককে পূনর্বাচনের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম ম্যানুয়েল সংশোধন করা হয় এবং সংশোধিত ধারায় বলা হয় যে,এখন থেকে …

আরও পড়ুন

প্রিয় শুক্রবার এবং সোনাইছড়ি

গত শুক্রবারটা মনে হয়েছিল শুধু আমার জন্যই ছিল। শুরুটাই দারুন হয়েছিল। অন্যান্য শুক্রবারে বেলা করে ঘুম থেকে উঠলেও আজকে একটু সকাল সকাল উঠে গিয়েছিলাম, দাত ব্রাশ করতে করতে মা’কে জিজ্ঞেস করলাম সকালে খাবারের মেনু কি, মা বললো নাপ্পি দিয়ে মরিচ ভর্তা আর বাঁশ করুল ( কচি বাঁশ আর শুটকি মাছ দিয়ে বানানো নাপ্পি, একধরনের উপজাতিয় খাবার),শুনে খুশি হলাম তাই খাবার গুলো আরেকটু মজাদার করতে বের হই আরো কিছু লতাপাতা যোগার …

আরও পড়ুন

নারী

তোমার ঘুমাতে ইচ্ছা করবে, কিন্তু তুমি ঘুমোতে পারবেনা ! তোমার সাজতে ইচ্ছে করবেনা , কিন্তু তোমায় সাজতে হবেই । তোমার খেতে ইচ্ছা করবে , কিন্তু তোমায় খেতে দেয়া হবেনা ! আবার তোমার খেতে ইচ্ছে করবেনা , কিন্তু !তোমায় জোড় করে খাওয়ানো হবে । তোমার কাউকে দেখতে ইচ্ছে করবে, কোথাও ঘুরতে ইচ্ছে করবে , অথচ, কোথাও তোমার প্রেমিক খুঁজে পাবেনা ! কখনো কখনো তোমার খুব কাঁন্না পাবে , কিন্তু তুমি কাঁদতে …

আরও পড়ুন
error: Content is protected !!