সমালোচনা

বাংলাদেশের শিক্ষা ও চিকিৎসা ব্যবসা

বর্তমানের এই শূন্য দশকে শিক্ষা এবং চিকিৎসা উন্নতমানের সম্মানজনক বহুমুনাফাভোগী ব্যবসা। বেশিরভাগ সমাজসেবক এবং আমলা-কামলা বর্তমানে ব্যবসা হিসেবে প্রথম পছন্দে শিক্ষা ও চিকিৎসাকেই প্রথম পছন্দ হিসেবে নিয়েছে। এটি এমন একটা ব্যবসা যেখানে অল্প পরিশ্রমে বেশি মূলধন খাটিয়ে আজীবন গ্যারান্টিসহকারে মুনাফা পাওয়া যায়। সেবাকে ব্যবসায়ীক তকমা মেখে দেওয়ার পর এই বাংলাদেশে কি পরিমাণ শিক্ষা এবং চিকিৎসা খাতে মানুষের ভোগান্তি বেড়েছে এবং অধিকার অনধিকারে পরিণত হয়েছে তা কল্পনাতীত নয়। শিক্ষা ও চিকিৎসা …

আরও পড়ুন

করোনাভাইরাস : স্থানীয় ও রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির অধিক বিপদের আশংকা

কেমন আছেন আপনারা? নিশ্চয় ভালো নেই, বিশ্বমহামারি করোনা মোকাবেলায় আজ দীর্ঘ একমাসের বেশি সময় ধরে বন্দি জীবন কাটাচ্ছেন। জীবনযাত্রা সম্পূর্ণ পাল্টে গেছে। অবশ্য পরিবর্তন প্রকৃতির খেলা। এতসবের পরেও কখনো কি প্রশ্ন জেগেছে কেমন আছে ২০১৭ সালে মায়ানমার হতে বিতাড়িত কক্সবাজারের বিশাল রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠি? সর্বশেষ ৩১শে মার্চ ২০২০ সালের বিশ্ব অভিবাসন সংস্থা ইউএনএইচসিআর (UNHCR) এর তথ্যমতে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবিরে বসবাস করছে ১,৮৭,৮৪৪ (এক লক্ষ সাতাশি হাজার আটশো চুয়াল্লিশ) টি পরিবার এবং …

আরও পড়ুন

করোনাকালের দুর্নীতিবাজ বনাম মানবতা

যার যত আছে সে তত চায়। বাংলায় এই প্রবাদটি এতটাই বেশি সত্যি যে করোনার মতো দুঃসময়েও নিজের আখের গোছাতে ব্যস্ত কেউ কেউ। লজ্জা,ঘৃণা,সঙ্কোচের কোনো বালাই নেই। দেশের মানুষের প্রতিক্রিয়ায় এদের কিছু হয় না। তাদের সম্মানের চামড়া এতই মোটা যে তাদের কোনোভাবেই লজ্জা দেওয়া যায় না। সারা পৃথিবীতে এখন করোনার কাল চলছে। বৈশ্বিক এই মহামারীতে একমাত্র মানবতাই পারে আমাদের এই ঘোর সংকট থেকে রক্ষা করতে। একজনের হাত অন্যজনের দিকে বাড়িয়ে দিয়েই …

আরও পড়ুন

ধর্মভীরু না ধর্মান্ধ!

পুরো বিশ্বের মত বাংলাদেশেও করোনা ভাইরাসের আক্রমণে স্থবির জনজীবন। সরকারের পক্ষ থেকে কারফিউ জারি হয়েছে। জনসমাগম না করতে বলা হয়েছে। রাস্তায় পুলিশ,আর্মি দাঁড়ানো, কোন মানুষ পেলেই বুঝিয়ে পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে বাসায়। এই সময় আলাদা যতটা থাকা যায় ততটাই কল্যাণকর সবার জন্য। একটু আলাদা থাকা ভেঙে দিতে পারে করোনার শেকল। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কলকারখানা, গার্মেন্টস, এবং অন্যান্য যা কিছু আছে সব কিছু বন্ধ অবস্থায় আছে।এর ফলে, বিপাকে পড়েছে নিম্নআয়ের মানুষেরা। তাদের উপার্জন …

আরও পড়ুন

চীনের করোনাভাইরাস থেকে বাঙলাদেশের ব্যঙ্গব্যাধি

শেষ খবর পাওয়া অব্দি ১৬২৩২ জনের মৃত্যু ঘটিয়েছে করোনাভাইরাস আর তামাশাপ্রিয় বাঙালির মনে লেগেছিলো ধর্মীয় ও রাষ্ট্রীয় রঙ। ইতালির পার আউয়ার মৃত্যু দেখে থমকে গেছে পৃথি,  তারপরেও যেনো আমরা স্বাচ্ছন্দ্যে বেঁচে থাকছি, ঘুরছি-ফিরছি। সমাধানহীন কিছু প্রশ্ন! চীনসহ যখন ১০৬ টি দেশে করোনাভাইরাস মারাত্মক রূপ ধারণ করেছে তখন থেকে চিন্তা করলে বাংলাদেশ সরকার সকল আন্তর্জাতিক এরাইভাল কি অফ করতে পারতো না? আচ্ছা এরাইভাল হুট করে বন্ধ করা না গেলেও সরকার কি …

আরও পড়ুন

করোনা ভাইরাস বা কভিড-১৯ সম্পর্কিত ভাবনা

জীবাণু যুদ্ধ অথবা কোল্ড ওয়ার ডেভেলপ হয়েছে বুঝা যাচ্ছে। দেখলাম উইকিলিক্স এরমতো সাইটে অনেক আগে থেকেই বার্তা দেওয়া আছে, পাশ্চাত্য দেশগুলোর গোপন জীবাণু গবেষণা কেন্দ্র সম্পর্কে। তাদের মাইক্রোবায়লোজির মতো বিষয়গুলোর পেছনে বিলিয়ন ডলার ঢালার মুটিভকে ছোট করে দেখার কোন অবকাশ নেই। আচ্ছা এমন নয় তো! তাদেরই জীবানু গবেষণা কেন্দ্র থেকে এক্সিডেন্টলি করোনার স্প্রিডিটি? কোন দেশের একজন জীবানু বিজ্ঞানী জানি ইতিমধ্যে এমন আশংকা করে বসেছেন এবং এই বিজ্ঞানী দীর্ঘদিন ধরেই জীবানু …

আরও পড়ুন

সংকটাপন্ন ও ক্রান্তির পথে আদিবাসী অস্তিত্ব এবং রাষ্ট্রীয় সরকারের হীন দৃষ্টিভঙ্গী

পার্বত্য চট্টগ্রামের বর্তমান প্রেক্ষাপথ বিবেচনায় আদিবাসী জাতিগোষ্ঠীর অস্তিত্ব এখন চরম সংকটাপন্ন ও ক্রান্তির অবস্থানে দাড়ানো। পাহাড়ের প্রকৃতিও এখন বেশ হতাশ। যাপিত বাস্তবতার উপত্যকায় দাড়ানো জীববৈচিত্রতার আর্তচিৎকার। প্রকট ধ্বনিত পাহাড়ের ক্রন্দন। সবমিলিয়ে পাহাড় কিংবা পার্বত্য চট্টগ্রামের বাস্তবতা এবং পাহাড়ের সহজ সরল আদিবাসী জাতিগোষ্ঠীগুলোর অস্তিত্ব ব্যাপক হুমকির মূখে পতিত। একসময় পাহাড় অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমির অনুকূলে বেশ সবুজ ছিলো, কিন্তু এখন আর নেই। সবুজ পাহাড়কে বিবর্ণ করা হয়েছে। চরম বিবর্ণ!!! যে বিবর্ণের হিংস্র …

আরও পড়ুন

গ্রেফতার এবং পুলিশ রিমান্ডের অপব্যবহার : বাংলাদেশ পরিপ্রেক্ষিত

একটি দেশের জন্য তিনটি অঙ্গ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যথা আইন প্রণয়ন বিভাগ, বিচার বিভাগ ও শাসন বিভাগ। একটি অঙ্গ আরেকটির সাথে জড়িত এবং একইসাথে কাজ করে এই বিভাগগুলো। বিশেষ করে শাসনবিভাগ সরাসরি জনমানুষের সাথে সম্পৃক্ত। বিচার বিভাগ মানে আদালতের আদেশ কার্যকর করতে তারা সবচেয়ে বেশি কষ্ট করে। শাসন বিভাগে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা হিসেবে সাধরণত পুলিশকে আমরা গুরুত্বসহকারে এবং প্রাথমিকভাবে দেখে থাকি। এরমধ্যে অনেকবার সরাসরি পুলিশের ক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। দেখা গেছে …

আরও পড়ুন

পার্বত্য চট্টগ্রামে কার উন্নয়ন, কীসের উন্নয়ন?

পার্বত্য চট্টগ্রামে সরকারের উন্নয়নের বুলি শুনতে শুনতে যেন কান ঝালাপালা হয়ে গেছে। যেন উন্নয়ন হলেই পার্বত্য চট্টগ্রামে সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। প্রতি বছর হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন হচ্ছে বলেও সরকারের দিক থেকে হার হামেশাই বলা হচ্ছে। কিন্তু আদতে কি তাই? আসুন একটু তলিয়ে দেখা যাক- ১। পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুদত্ত চাকমা বলেছেন- “পার্বত্য চট্টগ্রামের তিনটি জেলায় দারিদ্র্যের হার এখনো ৪৮ শতাংশের ওপর রয়ে গেছে”। গত ৫ …

আরও পড়ুন

পার্বত্য চট্টগ্রামে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক সভা নিয়ে কিছু কথা

বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন গত ১৬ ও ১৭ অক্টোবর পার্বত্য চট্টগ্রাম সফর করে আইন শৃঙ্খলা বিষয়ক বৈঠক ও আলোচনা সভা করেছেন। ১৬ অক্টোবর তিনি হেলিকপ্টারযোগে প্রথমে খাগড়াছড়ির রামগড়ে যান এবং সেখানে একটি থানা ভবন উদ্বোধন করেন। এরপর ঐ দিন বিকালে তিনি রাঙামাটিতে গিয়ে তিন জেলার সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা ও গোয়েন্দা সংস্থার লোকজনের সাথে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। পরদিন একই বিষয়ে তিনি রাঙামাটি সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে সরকারি দলের এমপি-মন্ত্রী, তিন …

আরও পড়ুন

প্রধানমন্ত্রীর শান্তিতে নোবেল পেতে হলে …

চট্টগ্রামের মেয়র আ.জ.ম. নাসির উদ্দীন বলেছেন বুয়েটের হত্যাকা- না ঘটলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শান্তিতে নোবেল পেতেন। নোবেল কি এত সস্তা? আমি মনে করি নোবেল পেতে হলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে পার্বত্য চট্টগ্রামে জুম্মদের অধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে প্রকৃত শান্তি আনতে হবে। পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি ছাড়া তিনি নোবেল শান্তি পুরস্কার পাবেন না। স্মরণ করা দরকার, পার্বত্য চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে সশস্ত্র সংঘাত বন্ধ হওয়ার পর পরই তিনি ইউনেস্কো শান্তি পুরস্কার লাভ করেছিলেন। বর্তমানে সারা বিশ্ব …

আরও পড়ুন

তোমাকে বলছি…..কেন ফ্যাসিবাদ দূর হয় না

কুসংস্কারচ্ছন্ন, ধর্মান্ধ, ভক্তিবাদী কর্মী বাহিনী নিয়ে ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করা যায় না। ইতিহাস কি বলে, ইউরোপী বুর্জোয়ারা যখন গির্জার শাসন থেকে জনগণকে মুক্ত করল তখন রাজার সঙ্গে আপোস করতে হয়। স্বৈরাতন্ত্রকে সমর্থন দিতে হয়। কারণ পুরোহিতদের সঙ্গে লড়াই করার মতো সক্ষমতা বুর্জোয়াদের ছিল না। সেকালে পুরোহিতরা জনগণকে ব্যক্তিস্বাধীনতা দেয়নি। ঈশ্বরের কাছে মাথা বন্ধক রাখতে হত। কেননা ধর্মও একপ্রকার সমাজবাদী আন্দোলন। জোটবদ্ধভাবে ঈশ্বরের বিধি নিষেধ মান্য করতে হত। ধর্মে ব্যক্তির কোন …

আরও পড়ুন

মুফাসসিল ইসলামের পোস্টমর্টেম-৩

চতুর্থত আরেকটি বিষয় হতে পারে ষড়যন্ত্র। মৌচাকে ঢিল দিয়ে পালিয়ে গেলাম, এখন মৌমাছি যাকে পারে খুব কামড়াক। হয়তোবা ওদেরই একটা এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য এসেছিল, যেমন কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য হিসেবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে মিখাইল গরভাচেভ গ্লাসনস্ত ও পেরেস্ত্রইকার মাধ্যমে পুরো সমাজতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থাকেই ধ্বংস করে ফেলেছিল। মুফাসসিল ইসলামও হয়ত এসেছিলেন, এক সময় সাথে করে এক গাদা নাস্তিকদের সাথে নিয়ে নিজ মতবাদের ভিতর ঢুকিয়ে দিবেন। যদিও মুফাসসিল ইসলামের দাবি তার ভিডিও দেখে …

আরও পড়ুন

মুফাসসিল ইসলামের পোস্টমর্টেম-২

সেই মুফাসসিল কেন যে গড্ডালিকার প্রবাহ ছেড়ে নাস্তিকতার মত অজনপ্রিয় জগতে ঢুকলেন তা এক চরম বিস্ময়। অবশ্য নাস্তিকতার জগত না বলে বিশেষ একটি ধর্ম বিদ্বেষী বলাই অধিকতর যুক্তিযুক্ত। কারণ তার কোন ভিডিওতেই আমি দর্শন শাস্ত্রের আলোকে ঈশ্বরের অস্তিত্বহীনতার পক্ষে যুক্তি বা বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব আলোচনা করতে দেখিনি। অথচ এই বিষয়টিকে বিজ্ঞান ও দর্শনের আলোকে প্রমাণ করা গেলে অন্য কোন কিছু নিয়েই এত বকর বকর করা লাগেনা। এর উপরে ভিত্তি করে দাঁড়ানো …

আরও পড়ুন

মুফাসসিল ইসলামের পোস্টমর্টেম-১

ইন্টারনেট জগতে মুফাসসিল ইসলামের আগমন ছিল মূলত অনেকটা ডঃ জাকির নায়েকের মত, ইসলামী আলোচনার মধ্য দিয়ে। পঞ্চাশ ষাটের দশকে এদেশে সমাজতন্ত্র ও সাম্যবাদ একটা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছিল। প্রায় সকল শিক্ষিত মানুষই সারাক্ষণ মার্কসবাদী ও লেনিনবাদী কথাবার্তা বলত। যে তেমন কিছুই জানেনা সেও দুচারটা কথা বলার চেষ্টা করত। বাম ঘরানার সাহিত্য ও চলচ্চিত্রের তখন জয়জয়কার। মার্কসবাদ লেনিনবাদ নিয়ে কথা না বললে কেমন আনস্মার্ট লাগে। সবকিছুকেই মার্কসবাদের তত্ত্ব দ্বারা ব্যাখ্যা করা তখন …

আরও পড়ুন
error: এই ব্লগের লেখা কপি করা যাবে না