ইতিহাস

অধ্যাপক নাজির আহমদ ও শিক্ষা ক্ষেত্রে বাঙ্গালীদের অগ্রযাত্রা

অধ্যাপক নাজির আহমদ ১৮৯৬ সালে ২৬ আগষ্ট সীতাকুণ্ডের মুরাদপুর ইউনিয়নের গোপ্তাখালী গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন । তৎকালীন শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিদের মধ্যে তিনি একজন । চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড থানার প্রথম এম এ ডিগ্রি অর্জন করেন । তিনি এমন একজন শিক্ষক ছিলেন যার বহু ছাত্র ভারত, পাকিস্থান, ও স্বাধীন বাংলাদেশের বিনির্মানে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা …

বিস্তারিত পড়ুন

ভারতবর্ষে বাঙ্গালী বৌদ্ধদের রেঁনেসা (পর্ব-৪, শেষ পর্ব)

ভারতবর্ষে বৌদ্ধদের ও বাঙ্গালী বৌদ্ধদের নবজাগরনের সূচনা হয় ঊনিশ শতকের গোড়ার দিকে । বিভিন্ন লেখক, পন্ডিত, ঐতিহাসিকগন বৌদ্ধদের রেঁনেসা হিসাবে উল্লেখ্য করেছেন । এতে যারা অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন তাদের মধ্যে কর্মযোগী কৃপাশরণ মহাস্থবির(১৮৬৫-১৯২৬), অনাগরিক ধর্মপাল মহাস্থবির(১৮৬৪-১৯৩৩), অগগমহাপন্ডিত প্রজ্ঞালোক মহস্থবির(১৮৭৯-১৯৭১), অধ্যাপক সমন পূন্নানন্দ স্বামী(১৮৭৮-১৯২৮), বিনয়াচার্য বংশদীপ মহাস্থবির(১৮৮০-১৯৭১), জ্ঞানীশ্বর মহাস্থবির(১৮৮৭-১৯৭৪), পন্ডিত …

বিস্তারিত পড়ুন

ভারতবর্ষে বাঙ্গালী বৌদ্ধদের রেঁনেসা (পর্ব-৩)

সে সময় মহাত্মা গান্ধীর নেতৃত্বে ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন খুব জোরদার হয়ে চরম পর্যায়ে আসে । এই সময় বৃটিশ সরকার নতুন করে এক ভারত শাসন আইন প্রবর্তন করার সিদ্ধান্ত নিলেন । তালতলা বাসভবনে কলকাতা ধর্মাঙ্কুর সভা, বঙ্গীয় বৌদ্ধ সমিতি বা বেঙ্গল বুড্ডিষ্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কতালা নিবাসী ডা: শান্ত কুমার চৌধূরী, …

বিস্তারিত পড়ুন

ভারতবর্ষে বাঙ্গালী বৌদ্ধদের রেঁনেসা-(পর্ব-২)

১৯৩০-৩১ সালের কার্য বিবরনীতে অন্যতম মূদ্রক ছিলেন ড. বেনী মাধব বড়ুয়া । কতালা নিবাসী ডা: শান্ত কুমার চৌধূরী ছিলেন সাধারণ সম্পাদক । ১৯৩৩ সালে ডা: শান্ত কুমার চৌধূরী কলকাতা ধর্মাস্কুর বিহার সভার সাধারণ সম্পাদক থাকা অবস্থায় এবং আন্তরিক প্রচেষ্ঠায় প্রতিষ্ঠিত হয় বৌদ্ধ অনুশীলন সমাজ ও মহিলা সমিতি । এদিকে, সুষমা …

বিস্তারিত পড়ুন

ভারতবর্ষে বাঙ্গালী বৌদ্ধদের রেঁনেসা (পর্ব-১)

জীবন জীবিকার জন্য রেঙ্গুনে বহু বাঙ্গালী বৌদ্ধ অবস্থান করতো। প্রবাসী বাঙ্গালী বৌদ্ধরা ধর্মীয় উৎসবাদি প্রতিপালনের সুবিধার্থে ১৯০২ সালে বাঙ্গালী ভিক্ষু প্রজ্ঞাতিষ্য মহাস্থবির (১৮৭১-১৯৩২) এর নেতৃত্বে “রেঙ্গুন ধর্মদূত বৌদ্ধ বিহার” প্রতিষ্ঠা করেন। একই বছরে জাতীয় পর্যায়ের বিভিন্ন উৎসবাদি, বিহারের ভিক্ষু শ্রামনদের ভরন-পোষন, বিহার রক্ষনা-বেক্ষন ও নিজেদের মধ্যে সৌহার্দ্য ভাব বৃদ্ধির জন্য …

বিস্তারিত পড়ুন

মদ গাঁজা ভার্সেস প্রগতিশীলতা || তানভিরুল মিরাজ রিপন

মানুষকে বিচার করা যায় না, পারদের মতো ভাগ করা যাবে কিন্তু স্পর্শ করা যাবে না, শেষ বিন্দু বলতে কিছুতেই যাওয়া যাবে না।আমি ধর্ম বিশ্বাস করি না বলে আমি অসংখ্য ধর্মানুসারীকে অসম্মান করতে পারি না, অথবা আমার পরিবারের কেউ নামাজ কালাম পড়লে আমি প্রগতিশীল হতে পারবো না, এমন নয় বিষয়টা। আমার ঘরে …

বিস্তারিত পড়ুন

ফিরে দেখা রুশ বিপ্লব

বর্তমান গোলকায়নের যুগে দাঁড়িয়ে, সারা দুনিয়ার মেহনতি মানুষের সংগ্রামকে উপলব্ধি করে আমরা যদি শতবর্ষী অদূর অতীতের পানে ফিরে তাকাই তবে এই বিশ্বব্যাপী সংগ্রামের সূচনারেখা রুশ বিপ্লবকে অবলোকন করি। এই রুশ বিপ্লব ছিলো সহ¯্রবর্ষী তিমিরাচ্ছন্ন সংগ্রামী ইতিহাসের আলোকবর্তিক যা দেশে দেশে মানব মনে জ্বেলেছিলো বিপ্লবের আলো। সেই থেকে একযোগে শুরু হওয়া …

বিস্তারিত পড়ুন

বহিঃসাংস্কৃতিক আগ্রাসন বিধ্বস্ত বাঙালিয়ানা || আবু বকর সিদ্দিক

চৌদ্দই ডিসেম্বর’ যে সকল বুদ্ধিজীবীদের নির্মমভাবে হত্যা করা হয়,তাঁদের প্রায় সবাই ছিলেন অসাম্প্রদায়িক চেতনার ৷ তারা নিজেরা ধর্ম পালন করতেন না এবং কোন ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য তাঁরা রক্ত দেননি৷ আমরা যাদের শহীদ বুদ্ধিজীবী বলে থাকি,ইসলামী দৃষ্টিকোণ থেকে তাঁরা শহীদের মধ্যে পড়েন না৷ কারণ প্রথমত বুদ্ধিজীবীদের প্রায় সবাই মানবতার …

বিস্তারিত পড়ুন

আমি তোমার মনকে নয়, দেহকে ভালোবাসি || মোর্শেদ আলম সাকিল

ভালোবাসা সেতো এক সর্বনাশা। ভালোবাসা বলতে বর্তমানে শুধু দেহের আশা। “আমি তোমার মনকে নয়, দেহকে ভালোবাসি” কথাটি বর্তমানের জন্যই একদম সঠিক। আমি পুরুষ, আমারও অধিকার আছে সেই নগ্ন ভালোবাসার। আমার ভিতরেও যৌবনের ঝড়োচ্ছাস হয়। আমারও ইচ্ছে করে দেহ ভোগ করতে। হউক সেটা ভালোবেসে অথবা বেশ্যামিতে। তার মধ্যে আমার যৌন চাহিদা …

বিস্তারিত পড়ুন

প্রবাস জীবন ।। ইমরান হোসেন মুন্না

নিজ দেশ ত্যাগ করে  যখন অন্যদেশ যাই তখন বুকের বামপাশটা খুবই ব্যথা করে। নিজের দেশের জন্য, বউ বাচ্চার জন্য। ওরা মনে করে খুবই সুখের সাথে টাকা পয়সা ইনকাম হয় এখানে। ওরা বুঝে না, হয় শরীরের বেদনার কথা। যখন প্রথম ফ্লোর থেকে সপ্তম ফ্লোরে সিমেন্টের বস্তা কাঁধে করে সিড়ি বেয়ে ওঠাতে …

বিস্তারিত পড়ুন