সংস্কারের প্রশ্নে আমরা সবাই সাম্প্রদায়িক নয় কি ?

সংস্কার এমন একটি বিষয় যা মানব সভ্যতার জন্য খুব প্রয়োজন । অথচ সংস্কারের কথা ওঠলেই এই দেশে হইছই পড়ে যায় । ইংরেজ আমলে “বিধবা বিবাহ” আইন পাস করার সময় এর বিরুদ্ধে গিয়েছিল রক্ষনশীল সমাজ । ৩৩ হাজার স্বাক্ষর সংবলিত আবেদনের পাশাপাশি ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের পক্ষে স্বাক্ষর করেছিল মাত্র ৯৮৭ জন । ঈশ্বরচন্দ্র মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়লে ও ইতিহাস প্রমান করে কারা সঠিক ছিল । এই ভাবে সংস্কার হবে পরাজয়ের মধ্য দিয়ে হলে ও কেননা মানুষ দিনের পর দিন বুঝতে পারছে কোনটা সত্য সংস্কার আর কোন মিথ্যে সংস্কার । আমাকে মনে করে দিয়েছে নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা । সংস্কার হবে কিছু জ্ঞানির লেখনিতে । তা না হলে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কি ভাবে জানতেন বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন দেশ হবে । অবাক করার বিষয় হলো রবীন্দ্রনাথের মৃত্যু ১৯৪১ সালে অথচ তিনি লিখেছেন: “আজি বাংলাদেশের হৃদয় হতে কখন আপনি” । তাই সংস্কার হবেই হবে সেটা জয় দিয়ে হোক কিংবা পরাজয়ের মধ্য দিয়ে । মনে রাখতে হবে দুনিয়াটা এক প্রশ্নবিদ্ধ সত্য । সত্য সদা সত্য, সত্য দিয়ে সংস্কার হবেই ।

শেয়ার করুন

ব্লগার জিতু চৌধূরী

মুক্ত চিন্তার মানুষ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।