ধর্ম

বিচ্ছিন্ন ও অবিচ্ছিন্ন ঘটনার নিরবচ্ছিন্নতা

নবি মুহম্মদ মোট সাতাশটি যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। বহু আত্মীয় স্বজন এবং প্রতিবেশী নিহত হন সেসব যুদ্ধে। যুদ্ধগুলো তিনি শান্তির ধর্ম ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য করেছিলেন। কোরআনের সুরা কাউসার ৩/৩,লাহাব ৫,হুদ ১৭, আল ইমরান ৮৫, আত্ তাহরীম ১২/৭ও৯, আলহাছর ২৪, আল মুমতাহিনা ১,৮,১৩, আছ ছফা ১৪, মায়েদা ৩৩ এবং সমগ্র কোরআনের এরূপ ৫২৭ টি আয়াতে ইহুদি খ্রিস্টান ও অবিশ্বাসীদের প্রতি ঘৃণা প্রকাশ ও গালাগাল দেয়া হয়েছে। আর ১০৯টি আয়াতে তাদের সঙ্গে যুদ্ধ …

আরও পড়ুন

ধর্মের জন্য দেশ নয়

ইহুদিরা কী চায়, এটা দিয়ে ইসরায়েল চলতে পারে না। হিন্দুরা কী চায়, এটা দিয়ে ভারত চলতে পারে না। কোনও দেশই কোনও ধর্মের সম্পদ নয়। কোনও দেশই কারও বাপের সম্পত্তি নয়। দেশ মানুষের , পশুপাখি গাছপালাার। দেশ মাটির। দেশ দেশের জন্য। দেশ সবার। ধর্ম ছিল না, ধর্ম থাকবে না, দেশ থাকবে। দেশ মাতৃকা আদিম। ধর্ম আর জাতিগোষ্ঠী তো মাত্র সেদিনের। সংখ্যায় ভারি বলেই আপনি অত্যাচার কিংবা আধিপত্য দেখাতে পারেন না। আপনার …

আরও পড়ুন

ধর্ম

ধর্ম না থাকলে “বেশ্যা” শব্দটা থাকতো না।ভালো,খারাপের কোন ধারণা থাকতো না।একটা পরিবেশের মানুষ যেমন ইচ্ছে তেমন চলাচল  করতে পারতো।অপ্রীতিকর অবস্থা সৃষ্টি করেও…..!! ওহ, দুঃখিত, যেখানে ধর্ম নেই সেখানে প্রীতিকর, অপ্রীতিকর ধারণা আসে কোথা থেকে? যে যা ইচ্ছা করতে পারতো কোন বাধা আসতো না। বারবার “পারতো” শব্দের ব্যবহার প্রমান করে ধর্মের অস্তিত্ব এই সমাজে কিছুটা হলেও আছে। ধর্ম মানে নিয়ম। এই নিয়মের বেড়াজালে পাপগুলো বন্দি থাকলেও মনের প্রবল আবেগ,অনুভূতির মাধ্যমে এই …

আরও পড়ুন

ধর্ম, ব্যক্তি, রাজনীতি ও ধর্মনিরপেক্ষ ভাবনা

আলোচনার শুরুতেই বলে নেওয়া প্রয়োজন আমি কেন ব্যক্তিস্বাধীনতায় বিশ্বাস করি। এই বিষয়টা বুঝতে আমাকে প্রচুর সময় অতিক্রম করতে হয়েছে। আমরা যদি একটু সচেতনভাবে বুঝতে চেষ্টা করি তাহলে দেখব, আমরা ব্যক্তিকে কখনই জানতে পারি না।  আমরা যা জানি বলে প্রচার করি তা মূলত, ঘটনা সম্পর্কে সাময়িক ধারণা। আসুন আরো ভিতরে ঢুকে বুঝতে চেষ্টা করি। ধরেন, আব্দুল রহিম ও দীপক শীল দুই বন্ধু। এরা পরস্পর দাঁড়িয়ে কথা বলছে। আমাদের কাছে সাধারণভাবে মনে …

আরও পড়ুন

মুফাসসিল ইসলামের পোস্টমর্টেম-৩

চতুর্থত আরেকটি বিষয় হতে পারে ষড়যন্ত্র। মৌচাকে ঢিল দিয়ে পালিয়ে গেলাম, এখন মৌমাছি যাকে পারে খুব কামড়াক। হয়তোবা ওদেরই একটা এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য এসেছিল, যেমন কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য হিসেবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে মিখাইল গরভাচেভ গ্লাসনস্ত ও পেরেস্ত্রইকার মাধ্যমে পুরো সমাজতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থাকেই ধ্বংস করে ফেলেছিল। মুফাসসিল ইসলামও হয়ত এসেছিলেন, এক সময় সাথে করে এক গাদা নাস্তিকদের সাথে নিয়ে নিজ মতবাদের ভিতর ঢুকিয়ে দিবেন। যদিও মুফাসসিল ইসলামের দাবি তার ভিডিও দেখে …

আরও পড়ুন

মুফাসসিল ইসলামের পোস্টমর্টেম-১

ইন্টারনেট জগতে মুফাসসিল ইসলামের আগমন ছিল মূলত অনেকটা ডঃ জাকির নায়েকের মত, ইসলামী আলোচনার মধ্য দিয়ে। পঞ্চাশ ষাটের দশকে এদেশে সমাজতন্ত্র ও সাম্যবাদ একটা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছিল। প্রায় সকল শিক্ষিত মানুষই সারাক্ষণ মার্কসবাদী ও লেনিনবাদী কথাবার্তা বলত। যে তেমন কিছুই জানেনা সেও দুচারটা কথা বলার চেষ্টা করত। বাম ঘরানার সাহিত্য ও চলচ্চিত্রের তখন জয়জয়কার। মার্কসবাদ লেনিনবাদ নিয়ে কথা না বললে কেমন আনস্মার্ট লাগে। সবকিছুকেই মার্কসবাদের তত্ত্ব দ্বারা ব্যাখ্যা করা তখন …

আরও পড়ুন

ধর্মের প্রয়োজনীয়তা কতটুকু?

ধর্ম কি? উত্তরে বলবেন নৈতিকতা, ঈশ্বরীয় নীতি, সামাজিকভাবে বেঁচে থাকার জন্য, সভ্য মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকার জন্য ধর্ম। এর বাইরে আশা করি আপনার আর উত্তর নেই। অবশ্য অপ্রকাশিত উত্তর এটাও যে পরকালের আশায় ইহকালে পূণ্য সঞ্চয়। আমি দৃঢভাবে বিশ্বাস করি বিশ্বাসী মানুষের কাছে ভয় খুবই প্রকটভাবে রয়েছে। বেশিরভাগ মানুষ শেষ বয়সে ধর্মটাকে বেশি ব্যবহার করে, মৃত্যু ভয়ে। যাহোক বিশ্বাস অবিশ্বাস সম্পূর্ণ আপনার নিজের ইচ্ছা এবং আগ্রহ। পূথিবীতে বর্তমানে ৪,৩০০ ( …

আরও পড়ুন

ভারতীয় পুরাণে কাল

ক্ষুদ্রতম, অবিভাজ্য এবং দেহরূপে যার গঠন হয় না তাই পরমাণু। পরমাণু অদৃশ্য অস্তিত্ব। প্রলয়ের পরেও তা বিদ্যমান থাকে। পরমাণু সমন্বিত শরীরের গতিই কালের গণনা। পুরাণ অনুযায়ী পৃথিবীতে কালের প্রামাণিক গতি সূর্যেরই গতি। একটি পরমাণুকে অতিক্রম করতে সূর্যের যেটুকু সময় লাগে তাই হলো পারমাণবিক কাল। স্থূল অথবা সুক্ষ্ম যাই বলা হোক না কেন, সেই কালকে গণনার আছে এক বৈজ্ঞানিক, দার্শনিক এবং আধ্যাত্মিক ব্যবচ্ছেদ। যা ধারাবাহিক, যা অসাধারণ। প্রাচীন ভারতীয় বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণে …

আরও পড়ুন

জেরুজালেম

অস্ট্রেলিয়াও জেরুজালেমকে ইজরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পরপরই এই স্বীকৃতি দিয়েছিল। এটা নিয়ে চলছে তুমুল বাক বিতণ্ডা। চলতেই থাকবে! কেউ কেউ জানেন যে জেরুজালেম ইজরায়েলের রাজধানী ১৯৮০ সাল থেকেই। ১৯৬৭ সালে সমস্ত আরব দেশগুলো ইজরায়েলকে যৌথভাবে আক্রমণ করে। উছিলা ছিল ফিলিস্তিন কিন্তু ভেতরে ভেতরে ঐ মুসলিম আরবদের ঐক্যবদ্ধ করেছিল কোরআনের ভয়ঙ্কর বাণী, “ইহুদিদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করো না। – ইহুদিরা যেখানেই বসতি স্থাপন করবে তাদের উচ্ছেদ করো। – …

আরও পড়ুন

ধর্মকথা

খুন ধর্ষণ লুটপাট নাস্তিকরা করলেও করতে পারে কারণ তারা কোনো ঈশ্বরের কাছে কৈফিয়তে বিশ্বাসী নয়। তারা নির্ভার এবং একক। তারা পরকালের শাস্তিকে হাস্যকর মনে করে অর্থাৎ বিশ্বাসই করে না। ফলে তাদের পক্ষেই হয়তো যা ইচ্ছা তাই করা সম্ভব। আর একজন আস্তিক বুঝে সবাই এবং সবকিছুই এক ঈশ্বরের , সে কাউকে আঘাত করতে পারে না। সে জানে এবং বুঝে সৃষ্টির উপর আঘাত মানে পরোক্ষভাবে সৃষ্টিকর্তার উপরেই আঘাত। অথচ আশ্চর্য, ঐসব তথাকথিত …

আরও পড়ুন

ধর্ম মানেই বিভাজন, ধর্ম মানেই ঘৃণা, ধর্ম মানেই অন্ধকারের পর্দা

#বোরকাওয়ালী বহুদিন আগে। বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় দ্বীপ ভোলায় তখন আমার অবস্থান। তখন আমি একটা অফিসের বস। একদিন কাজ করছিলাম নিজের টেবিলে। সহকর্মীরা তখন সব বাইরে। তখন দুপুর। আপাদমস্তক বোরকায় ঢাকা এক মেয়ে ঢুকল আমার অফিসকক্ষে। চোখ দুটোই শুধু দেখা যাচ্ছে। ভাগ্যিস, মানুষের চোখ ছিল! মেয়েটির সঙ্গে ঠিক কী কথা, কী ধরনের কথা হয়েছিল তা এখনও আমার স্মৃতিতে উজ্জ্বল। মেয়েটিকে বসতে বললাম। বসল। আগ্রহ নিয়ে। প্রশ্ন নিয়ে তাকালাম। বলল, “মোশাররফ ভাই …

আরও পড়ুন

নারীর কোন ধর্ম নেই

হুমায়ুন আজাদ বলেছিলেন “রামমোহন রায় হিন্দু নারীকে দিয়েছেন প্রাণ, ইশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর দিয়েছেন জীবন; রামমোহনের যেখানে শেষ, বিদ্যাসাগরের সেখানে শুরু”। রামমোহন চেয়েছিলেন সহমরণের আগুন থেকে শুধু নারীর প্রাণটুকু রক্ষা করতে। কিন্তু বিদ্যাসাগর বুঝেছিলেন বেঁচে থাকার জন্যে শুধু নিশ্বাস নিলেই হয় না, জীবন উপভোগ করেই বাঁচতে হয়। চিতার আগুনে ছাই না হয়ে বিধবার প্রাণটি বেঁচে গেলেও তাকে আজীবন ফলমূল ও একাহারী হয়ে মৃত স্বামীর ধ্যান করে বেঁচে থাকতে হবে। বিধবার থাকবে না …

আরও পড়ুন

ভারত শাসন আইন ও বৌদ্ধদের নবজাগরন

১৯৩৫ সালে ভারত শাসন আইনটি ছিল সুবৃহৎ দলিল । ভারতের রাজনৈতিক সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে ১৯২৭ সালে গঠিত হয় সাইমন কমিশনের রির্পোট প্রকাশিত হয় ১৯৩০ সালে । কিন্তু ভারতীয়রা এই রির্পোট প্রত্যাখ্যান করেন । ভারতের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার কথা চিন্তা করে এর সমাধানের নিমিত্তে সরকার ১৯৩০-১৯৩২ সালের মধ্যে তিনটি গোল টেবিল বৈঠক করেন । কিন্তু সেগুলা ব্যর্থ হয় । ইতিমধ্যে ব্রিটিশ প্রধান মন্ত্রী সাম্প্রায়িক রোয়েদাদ ঘোষনা করেন । বিভিন্ন দল ও সম্প্রাদায় …

আরও পড়ুন

কার্ল মার্কস প্রসঙ্গ: নৈতিকতা ও মানবিকতা

মার্কসবাদী বিরোধী শিবির প্রথমই যে আঘাতটা করে তা হচ্ছে মার্ক্সবাদে নৈতিকতার কোন স্থান নেই। মার্কস-এঙ্গেলস কে শয়তান হিসেবে বর্ণনা করা হয়ে থাকে। তাদের মধ্যে একজন টাকার উড উন্নতম। হ্যা, আমাদের স্বীকার করতে আপত্তি নেই, মার্কস-এঙ্গেলস সনাতনী নীতিবিদ ছিলেন না, উনারা অপরিবর্তনীয় ধ্রুব নীতিসর্বস্ববাদী কায়দায় যে নৈতিকতা তৈরি হয় তাকে প্রত্যাখ্যান করেন। মার্কসের পূর্বের দার্শনিকদের বিশ্লেষণ করলে আমরা দেখব কেউ কেউ ধর্মের প্রত্যাদেশ কে মেনে নেয় আবার কেউ কেউ নৈতিকতার মানদণ্ডের …

আরও পড়ুন

মার্ক্সীয় সাম্যবাদ অনিবার্য

ইউরোপে ১৬৮৮ সালে ইংলিশ বিপ্লব ও ১৭৮৯ সালে ফরাসি বিপ্লবের পথধরে পুঁজিবাদ যাত্রা করে। দীর্ঘ কালপর্যায়ে ইউরোপীরা দুনিয়ার প্রায় অঞ্চল তাদের উপনিবেশিক শাসনে পরিণত করেছিল। কার্ল মার্কস কমিউনিস্ট ইশতেহার রচনা করেন ১৮৪৮ সালে। এরপূর্বেই স্বাধীনতা আন্দোলন, ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন, ইংরেজ হঠাও, স্বাধীনতা নয় মৃত্যু এমন স্লোগান দুনিয়া জোরে উচ্চারিত হতে থাকে। যেমন, আমেরিকা স্বাধীন হয় ১৭৭৬ সালে, রুশ বিপ্লব হয় ১৯১৭ সালে, দেশভাগ হয় ১৯৪৭ সালে ইত্যাদি। সাম্রাজ্যবাদ বিষয়টা আসলে কি? …

আরও পড়ুন
error: Content is protected !!